সাবসিডেন্স সংক্রান্ত তথ্য-বিবরণী

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির 1101 ফেইস হতে 2005 সালে কয়লা উত্তোলন করা হলে 2006 সালে 1101 ফেইস বরাবর সারফেসে অবস্থিত কালুপাড়া নামক গ্রামে সর্বপ্রথম সারফেস সাবসিডেন্স পরিলক্ষিত হয়। পরবর্তী পর্যায়ে অন্যান্য ফেইস হতে কয়লা উত্তোলনের ফলে সাবসিডেন্স এলাকার পরিমাণ ও গভীরতা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেতে থাকে। এর ফলে মাইনিং এলাকায় অবস্থিত চাষাবাদ যোগ্য জমি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। পাশাপাশি বসবাসের ঘর-বাড়ীতে ফাটল সৃষ্টি হলে জোন অব ইনফ্লুয়েন্স মাইনিং এলাকার 622.28 একর জমি রিসেটেলমেন্ট এবং কম্পেনসেশন প্রদানসহ অধিগ্রহণ করা হয়। অধিগ্রহণকৃত 622.2৮ একর জমির মধ্যে ইতোমধ্যে প্রায় 574 একর জমিতে সাবসিডেন্স সৃষ্টি হয়েছে। ভূ-গর্ভের ট্রাক ডিপ ও বেল্ট ডিপ রোডওয়ে দু’টি বরাবর ভূ-গর্ভে কোল পিলার থাকায় ভূ-পৃষ্ঠে সাবসিডেন্স না হওয়ায় কোল ফেইস বরাবর ভূ-পৃষ্ঠের উত্তর-দক্ষিণে দুটি জলাশয়ের সৃষ্টি হয়েছে। উত্তর দিকের জলাশয়ে পানির সর্বোচ্চ গভীরতা প্রায় 7.50 মিটার। অপর দিকে দক্ষিণ দিকের জলাশয়ে পানির সর্বোচ্চ গভীরতা প্রায় 7.20 মিটার। জলাশয় দুটিতে কোম্পানী কর্তৃক সময় সময় মৎস্য পোনা অবমূক্ত করা হয়। পার্শ্ববর্তী গ্রামবাসীসহ দূর-দূরান্ত হতে আগত সৌখিন মৎস্য শিকারীগণ উক্ত জলাশয় হতে মৎস্য শিকার করে।